Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, রাজশাহী

e-mail : rcf.rjs@dgfood.gov.bd

web site : www.dgfood.gov.bd

সিটিজেন চার্টার

ক্রঃ নং

বিষয়/প্রাসঙ্গিক তথ্য

নাগরিক অধিকার

১।

কর্মকর্তা/কর্মচারী ব্যবস্থাপনাঃ

১৯৮৪ সালের এনাম কমিটি পুনর্বিন্যাস অনুযায়ী অত্রাফিসের নিয়ন্ত্রনাধীন কর্মকর্তা/কর্মচারী বিন্যাস নিম্নরূপঃ

কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীদের কর্ম সম্পাদন/দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে প্রচলিত আইন বা নিয়ম-নীতির ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হলে তা তাৎক্ষণিকভাবে অত্রাফিসসহ অন্যান্য উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের গোচরে আণয়ন করা যেতে পারে।

শ্রেনী

মঞ্জুরীকৃত পদ সংখ্যা

কর্মরত পদ সংখ্যা (এপ্রিল'১৫ মাসে)

প্রথম

১০৮

৭২

দ্বিতীয়

২১৯

১৮১

তৃতীয়

৫৪৪

৩২৫

চতুর্থ

৭৬৪

৭০৪

২।

অভ্যন্তরীণ খাদ্যশস্য সংগ্রহঃ

প্রতি বছর জাতীয় লক্ষ্যমাত্রার প্রায় দু’তৃতীয়াংশ খাদ্যশস্য এ বিভাগের ৮ টি জেলা থেকে সংগৃহিত হয়। এর মধ্যে নওগাঁ ও বগুড়া অন্যতম সংগ্রহঘন জেলা। মুলতঃ বোরো চালই বেশী সংগৃহিত হয়। সরকারী লাইসেন্সপ্রাপ্ত বৈধ/উপযুক্ত চালকলের সঙ্গে চুক্তিসূত্রে চাল সংগ্রহ করা হয়। ধান ও গম সংগ্রহ করা হয় সরাসরি কৃষক/ উৎপাদক থেকে। অনেকদিন সংরক্ষপ উপযোগী নির্ধারিত বিনির্দেশ মোতাবেক পণ্য সংগৃহিত হয়। এ জন্য এ বিভাগের ২ টি সিএসডি ও ৯৪ টি এলএসডি ক্রয়কেন্দ্র হিসাবে কাজ করে। সুষ্ঠু তদারকি ও মনিটরিং এর জন্য বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটি আছে। সমন্বিত জাতীয় খাদ্যশস্য সংগ্রহ নীতিমালার আওতায় সংগ্রহ অভিযান পরিচালিত হয়। ওজন, মান ও মজুদ সনদ এর মাধ্যমে স্থানীয় পেইং এজেন্ট ব্যাংক শাখা থেকে তাৎক্ষণিকভাবে বিক্রেতা বিক্রিত পণ্য মূল্য পেয়ে থাকেন। উপজেলা/সংগ্রহ কেন্দ্র ভিত্তিক সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রা, সংগ্রহ মূল্য ও সময়সীমাসহ যাবতীয় তথ্যাবলী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও ব্যবস্থাপক/এস এন্ড এম ও/ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এর দপ্তরে মজুদ থাকে।

এটা জাতীয় প্রাধিকারপ্রাপ্ত কর্মসূচি। কৃষক/উৎপাদকদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণ, তাদেরকে পরবর্তী মওসুমে উৎপাদনে উৎসাহীতকরণ ও বিভিন্ন সরকারী খাতে বিতরণ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে প্রয়োজনীয় সরকারী মজুদ পড়ে তুলতে এ কার্যক্রম ভূমিকা রাখে। সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক অংশগ্রহণ এ কর্মকান্ডের মূল চাবিকাঠি। কৃষক-মিলারগন কোন ভাবে সংগ্রহ কেন্দ্রে বা স্থানীয় খাদ্য অফিসে যে কোন ধরনের ভোগান্তি বা হয়রানির শিকার হলে তাৎক্ষনিকভাবে উর্দ্ধতন অফিস ও জেলা/উপজেলা সংগ্রহ কমিটির সভাপতি যথাক্রমে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের গোচরীভূত করা যেতে পারে।

৩।

সংগৃহিত খাদ্যশস্য সংরক্ষণ, পরিবহন/চলাচলঃ

বিভাগের ১ টি সাইলো, ২ টি সিএসডি (সেন্ট্রাল ষ্টোরেজ ডিপো) ও ৯৫ টি এলএসডি (লোকাল সাপ্লাই ডিপো) এর সাধারণ কার্যকর ধারণ ক্ষমতা ৩,৭৬,৯৬০ মেঃ টন। সাম্প্রতিক বাৎসরিক গড় সংগ্রহ প্রায় ৪.৫ লাখ মেঃ টন। বিভিন্ন চ্যানেলে বিভাগের গড় অভ্যন্তরীণ বিতরণ চাহিদা প্রায় ১.৭৫ লাখ মেঃ টনের কিছু বেশী। এ কারণে সংগৃহিত চালের বৃহদাংশ কেন্দ্রীয় চলাচল সূচীর (রেল, নৌ ও সড়কপথ) মাধ্যমে দেশের অন্যান্য ঘাটতি অঞ্চলে পরিবাহিত হয়। এ জন্য জাতীয় চলাচল নীতিমালা ও পরিকল্পনা আছে। বিদেশ থেকে দেশের দু’টি সমুদ্র বন্দরের মাধ্যমে আমদানীকৃত গম বিভাগের বিভিন্ন জেলায় কেন্দ্রীয় সূচীর বিপরীতে গৃহিত হয়। বিভাগের মধ্যে রেল/বিভাগীয় সড়ক পরিবহন ও জেলার মধ্যে অভ্যন্তরীন সড়ক পরিবহন ঠিকাদারের মাধ্যমে চলাচল করিয়ে মজুদ/চাহিদার সমন্বয় করা হয়। প্রচলিত পিপিআর আইনের আওতায় খোলা দরপত্রের মাধ্যমে পরিবহন ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। একই পদ্ধতিতে বিভিন্ন ডিপোর শ্রম ও চালনা (হ্যান্ডলিং) ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। ঠিকাদারীর শ্রেনী/ভিত্তিক নিয়োগকারী/সংগ্রহাক সত্তা (Procuring entity) নিম্নরূপঃ

ঠিকাদারীর শ্রেনী

সংগ্রহাকসত্তা (Procuring entity)/নিয়োগকারী

ক) বিভাগীয় সড়ক পরিবহন ঠিকাদার(ডিআরটিসি)

আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক, রাজশাহী বিভাগ, রাজশাহী।

খ) অভ্যন্তরীণ সড়ক পরিবহনঠিকাদার(আইআরটিসি)

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক(সংশ্লিষ্ট জেলা)

গ) শ্রম ও হ্যান্ডলিং ঠিকাদার (সিএসডি/এলএসডি)

-ঐ-

ঘ) শ্রম ও হ্যান্ডলিং ঠিকাদার(সান্তাহার সাইলো)

সাইলো সুপার, সান্তাহার।

ঠিকাদার নিয়োগ ও কর্ম পরিচালনা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যাদি সংশ্লিষ্ট সংগ্রহাক সত্তা/নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের দপ্তরে বিদ্যমান থাকে।অধিকন্তু, এতদ্সংক্রান্ত তথ্যাদি আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক দপ্তর, রাজশাহীসহ খাদ্য অধিদপ্তরের চলাচল, সংরক্ষণ ও সাইলো বিভাগ হতে অবহিত হওয়ার সুযোগআছে।

৪।

বিভিন্ন ডিপোতে সংরক্ষিত খাদ্যশস্য বিলি-বিতরণঃ

মুলতঃ নিম্নোক্ত আর্থিক/অনার্থিক সরকারী খাতে খাদ্যশস্য বিলি-বিতরণ করা হয়।

 

খাতের নাম

ধরণ

সুবিধাভোগী

ক)

ইপি/ওপি (অতি জরুরী/জরুরী গ্রাহক)

আর্থিক

সশস্ত্র বাহিনি, পুলিশ, বিডিআর, আনসার ও ফায়ার সার্ভিস ইত্যাদি।

খ)

ওএমএস (খোলা বাজার বিক্রয়)

ওএমএস কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও তদারকীর জন্য বিভাগ, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকার গঠিত কমিটি আছে। ওএমএস ডিলার নিয়োগকালে সরকার নির্ধারিত নীতিমালা অনুসৃত হয়।

-ঐ-

সর্বসাধারণ

গ)

কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা)

অনার্থিক

গ্রামীন জনগোষ্ঠী

ঘ)

টেষ্ট রিলিফ (টি আর)               

-ঐ-

গ্রামীন ও শহুরে জনগোষ্ঠী/প্রতিষ্ঠান

ঙ)

ভিজিডিপি (ভালনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম)

-ঐ-

সুবিধা বঞ্চিত গ্রামীন জনগোষ্ঠী

চ)

ভিজিএফপি (ভালনারেবল গ্রুপ ফিডিংপ্রোগ্রাম)

-ঐ-

সুবিধা বঞ্চিত গ্রামীন ও শহুরে জনগোষ্ঠী

ছ)

জি আর (গ্রাটিশাস রিলিফ)

-ঐ-

বিভিন্নদৈব দুর্বিপাকে ক্ষতিগ্রস্থ জনসাধারণ

  ঙ)সুলভ মূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণ (ফেয়ার প্রাইস)   আর্থিকসর্বসাধারণ
   চ)৪র্থ শ্রেনীর সরকারী কর্মচারীদের জন্য সুলভ মূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণ (ফেয়ার প্রাইস)   -ঐ-৪র্থ শ্রেনীর সরকারী কর্মচারীগণ

বিভিন্ন খাতে বিলি-বিতরণ এবং ওএমএস ডিলার নিয়োগ সংক্রান্ত তথ্য আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক দপ্তর, রাজশাহী, বিভাগের সকল জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক দপ্তর থেকে অবহিত হওয়া যাবে।

খাদ্য বিভাগ

রাজশাহী অঞ্চল