Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সাধারণ তথ্য

খাদ্যমন্ত্রণালয়ের অধীন খাদ্য অধিদপ্তর এর প্রশাসনিক দায়িত্ত্বপালনকারী দপ্তর হিসেবে আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয় রাজশাহী বিভাগে কাজ করছে। এ কার্যালয়ের দপ্তর প্রধান হিসেবে আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকদায়িত্ত্ব পালন করেন। এ কার্যালয়ের অধীনে রয়েছে জেলা পর্যায়ের রাজশাহী, নাটোর, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া এবং জয়পুরহাট জেলাখাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়সমূহ। সুষ্ঠু খাদ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতকল্পে জেলাখাদ্য নিয়ন্ত্রকের তত্বাবধানে অভ্যন্তরীণ ধান-চাল ও গম সংগ্রহ কার্যক্রম, খাদ্যশস্য মজুত করা, সরকারের বিভিন্ন সেবা খাতে খাদ্যশস্য বিতরণ, বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পপরিদর্শন, অগ্রগতির প্রতিবেদন প্রস্তুতকরণ, হিসাব সংরক্ষণ, উর্ধ্বতনদপ্তরের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন ইত্যাদি কার্যাবলী এই কার্যালয়ের আওতাধীন।

 

বর্তমান সরকারের অর্জন

  অর্থনৈতিক ও সামাজিক খাতে অর্জনঃ

দেশের সকল মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীশেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ প্রতিশ্রুতিবাস্তবায়নের জন্য সরকার বিভিন্নমুখী কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। জনসংখ্যাবৃদ্ধির বর্ধিত চাপের সাথে খাদ্য চাহিদা বৃদ্ধি, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেকৃষি উৎপাদনের বিরূপ প্রভাব সত্ত্বেও খাদ্য উৎপাদনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিসাধিত হয়েছে। বিশ্ববাজারে খাদ্যশস্যের অস্থিতিশীল ও উচ্চমূল্যের কারণেখাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে আপদকালীন মজুদ সুদৃঢ় করা হয়েছে। স্বল্প আয়েরজনগণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং খাদ্যশস্যের মূল্য স্থিতিশীলরাখার লক্ষ্যে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কার্যক্রমের আওতায় ওএমএস, সুলভমূল্য (মহানগর ও জেলা), সুলভ মূল (ইউনিয়ন), সুলভ মূল্য (কর্মচারী) এবংগার্মেন্টস খাতে খাদ্যশস্য বিতরণে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। এ কার্যক্রমগ্রহণের ফলে খাদ্যশস্যের বাজার মূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যেচলে এসেছে। আটার বাজার দর নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে সরকার আটা মিল হতে পেষণকৃতগমের ফলিত আটা ওএমএস ডিলারের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে বিক্রয় করে বাজারে আটারসরবরাহ বৃদ্ধি পূর্বক মূল্য নিয়ন্ত্রণেও সক্ষম হয়েছে। সর্বশেষ ইউনিয়ন পর্যায়ে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠির মাঝে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ১০/- টাকা কেজি দরে চাল বিক্রয় কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।ফলে আন্তর্জাতিকবাজারে খাদ্যশস্যের মূল্য বৃদ্ধি পেলেও দেশের কোথাও কোন প্রকার খাদ্য সংকটপরিলক্ষিত হয়নি।